হট স্টাইলে “প্রিয়া_বৌদির” শুয়ে থাকার ভিডিও তুমুল ভাইরাল, (ভিডিও)

HOT হট স্টাইলে “প্রিয়া_বৌদির” শুয়ে থাকার ভিডিও তুমুল ভাইরাল, (ভিডিও)

ফে’সবুকে যে কো’ন বৌ’দির তাদের কার্যক্রমগুলো ভাইরাল হয়ে, ফেসবুকে আ’রেকটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে, ওই ভিডিওতে দে’খতে চাই প্রিয়া নামের এক ফেসবুক আইডি থেকে এ’কটি ভিডিও আপলোড দেওয়া হয়েছে।

 

ওই ভিডিওতে ওই প্রি’য়া বৌদি ব্লু কালারের ড্রেস পড়ে শয়ন কক্ষে শুয়ে আ’ছে, বৌদির হট মুভমেন্ট দেখার পর তার এই ভিডিওটি ভাইরাল ‘হয়ে যা’য়। তার ওই ভিডিওটি আমরা আমাদের ওয়েবসাইটে শে’য়ার করছি।

ভিডিওটি উ’পভোগ করুন…

 

আরোও পড়ুন..‘বি’য়ে নয় রোমান্স করছি ১৫ বছরের ছোট রোহমানের সা’থে’, বলিউডের টক অব দ্য টাউন এখন শিল্পা শেঠি ও তা’র স্বা’মী রাজ কুন্দ্রা। প*র্ন ভিডিও বানানো এবং তা প্র’চারের অ’ভিযোগে রাজকে গ্রে*প্তার ক*রেছে পু*লি’শ।

 

আ*দালতের নি’র্দেশে তিনি রয়েছেন কা*রাগারে। অ’ন্যদিকে শিল্পাও এই ক’’র্মকাণ্ডের সঙ্গে জ’ড়িত আছেন বলে শোনা যাচ্ছে। এ’মনই সম’য়ে একটি ভারতীয় গণমাধ্যমে প্রকাশিত হ””য়েছে ‘রাজ-শিল্পার স’ম্পদের চিত্র।

 

সেখানে বলা হয়েছে, রা”জ কুন্দ্রা প্রায় ৪ হাজার কো’টি রুপির মালিক! আর শিল্পা শেঠির “” নামেও রয়েছে অঢেল স’ম্পদ। এদিকে এম’ন খবরে শিল্পার স্বামীর ইতিহাস জানতে অ’নে’কেই উ’ঠেপড়ে লেগেছেন।

 

নেহায়েত দরিদ্র প’রিবারের সন্তান রাজ কুন্দ্রা। এক সময় তার বাবা বা’লকৃষ্ণ ব্রিটেনে ছো’টখাটো একজন বাস কন্ডাক্টর হিসেবে কাজ কর’তেন। যা বেতন পেতেন তা দিয়েই চল’তো সংসার।

 

অ’র্থাভাবে রাজ কু’ন্দ্রা তার কলেজের পড়াশোনা শেষ করতে পারেননি। আর সে’ই ব্যক্তি ২০০৪ সালে সাকসেস ম্যাগাজিনে এশিয়ান বং’’শো’দ্ভূত ধনী ব্য’’ক্তিদের তালিকায় ১৯৮তম স্থানে উ’ঠে আসেন। মাত্র ২৯ বছর বয়সে এই তালিকায় উ’ঠে আসা স’র্বকনিষ্ঠ ব্যক্তি ছিলেন রাজ কুন্দ্রা।

 

মাত্র দেড় লাখ রুপি মূ’লধন দি’য়ে ব্যবসা শুরু করেন রাজ। নেপালের পশমিনা শা’লই তার ভাগ্যের চাকা দ্রুত গতিতে ঘুরিয়ে দেয়। ১৯’৯৪ সালে নেপাল ভ্রমণে যান রাজ। সেখান থে’কে পশমিনা শা’ল নিয়ে ব্রিটেনে ফিরে আসেন।

 

বড় বড় সব ব্রি’টিশ ফ্যাশন হাউজগুলোতে শালগুলো দেখান। এরপর শুরু হয়’ ব্যবসা। কন্টেইনার ভর্তি করে পশমিনা শাল ব্রিটেনে নিয়ে ‘দেদারসে বিক্রি করতে থাকেন। প্রথম বছরেই ২০ মি”লিয়ন পাউন্ড লাভ করেছিলেন রাজ। এরপর আ’র পেছনে ফিরে তাকাতে হয়’নি তাকে।

 

সামান্য বাস ক ন্ডাক্টরের ছেলে বিত্তশালী হয়ে ওঠেন দ্রুতই। শাল আমদানির ব্যবসা য’খন তাকে একটি অবস্থানে এনে দেয় তখন হীরার ব্যব”সায় হাত দেন। সেখানেও সফল হন।

 

এরপর একে একে রাশিয়া, ইউ”ক্রেন এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের মতো দেশগুলোর স’ঙ্গে খনিজ, রিয়েল এস্টেট এবং ন’বায়নযোগ্য জ্বা’লা’নির ব্য’বসায় জড়িত হন রাজ। তবে ভারতীয় পু’লিশের চোখে গত কয়েক বছর ধরেই রাজ অ’পরাধীর দৃ’ষ্টিতে ছিলেন।’

Leave a Reply

x