১২ মাসে সম্পূর্ণ আল-কোরআন মুখস্থ করলো ষষ্ঠ শ্রেণীর অন্ধ ছাত্রী ‘রাওজানুর’

তুরস্কের কনিয়া প্রদেশের কারাপিনার মহল্লায় কৃষক দম্পতির তিন ছেলেমেয়ের মধ্যে একজন রাওজানুর । রাওজানুর চার বছর বয়স থেকে চোখে দেখতে পায় না।

পরিবারের দুঃখ মোচন ও নিজের স্বপ্নকে বাস্তবায়নের লক্ষ্যে নিজ এলাকার ধর্মীয় মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের(ইমাম হাতিপ) এক বছরের একটি কুরআন কোর্সে ভর্তি হয়। পড়াশোনায় সাফল্যের সাথে মনোযোগ আকর্ষণকারী রাওজানুর,

কুরআন কোর্সের শিক্ষকবৃন্দ এবং বিশেষত তার মায়ের সার্বিক সহযোগিতায় বারো মাসে ব্রেইল বর্ণমালা পদ্ধতিতে সম্পূর্ণ কুরআন মুখস্থ করে স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করেছে।

করোনা ভাইরাস (কভিড-১৯) এর কারণে গত তিন মাস বাড়িতে পড়াশোনায় লিপ্ত থাকা রাওজানুর রাষ্ট্রপতি রেজেপ তায়্যিপ এরদোয়ানের সাথে সাক্ষাত করতে চায়।

এক দিনে ১১ পৃষ্ঠা মুখস্থ করেছে !
রাওজানুর কুরআন হিফজ করার ব্যাপারে তার আগ্রহ ও অনুভূতি ব্যক্ত করেন আনাদলু এজেন্সির সাংবাদিকের সাথে ।

স্বল্প সময়ে সম্পূর্ণ কুরআন মুখস্থ করে লক্ষ্যে পৌঁছাতে পেরে রাওজানুর অনেক আনন্দিত । রাওজানুর বলেন, স্বল্প সময়ে কুরআন মুখস্থ করার জন্য আমি দৃঢ় প্রতিজ্ঞাবদ্ধ ছিলাম, সেটাতেও সফল হতে পেরেছি ।

রাত দিন সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা করে কখনো কুরআন শুনে কখনো হাতে কুরআনের কপি নিয়ে মুখস্থ করতাম ।
দৈনিক গড়ে ১-২ পৃষ্ঠা মুখস্থ করতাম। এক দিনে এগারো পৃষ্ঠা পর্যন্ত মুখস্থ করেছি ।

রাওজানুর বলেন, আমি ক্লাসের পড়াশোনায়ও সফল ছিলাম । স্কুলের বৃত্তি পরীক্ষায় একটি প্রশ্ন ভুলের কারণে ৫০০ নম্বরের মধ্যে ৪৯৭ পেয়েছিলাম ।
কুরআন মুখস্থ করার ব্যাপারেও আলহামদুলিল্লাহ সফল হয়েছি ।

স্কুলের শিক্ষকদের প্রেরণা ও উৎসাহ আমাকে হিফজ সম্পূর্ণ করার ব্যাপারে বৃহৎ অবদান রেখেছে । হাফেজদেরকে কুরআনের অনুসারী হওয়া এবং সকলকে কুরআন মুখস্থ করার ব্যাপারে গুরুত্ব দেয়া উচিত বলে মনে করি ।

আমার সফলতার খবর শুনে অনেকেই সংবর্ধনা দেয় । আমার দুটি ইচ্ছার মধ্যে একটি ছিল কুরআন মুখস্থ করা , সেটাতে সফল হয়েছি ।

দ্বিতীয়টি হচ্ছে রাষ্ট্রপতি রেজেপ তায়্যিপ এরদোয়ানের সাথে সাক্ষাত করা । আমাকে যদি সে শুনতে পায় তাহলে যেন একটু ফোন কল করে ।

Articles You May Like

Leave a Reply

x