শাশুড়ির গুণে ভার্জিন নারকেল তেল বেচে লাখপতি দুই জা…!

সম্প্রতি এনটিভি অনলাইনের :স’ঙ্গে কথা হয় সাদিয়া ইসলাম ও তাসরিফা তাবাসসুমের। জানা’ন’ নিজেদের উদ্যোক্তা-জীবনের কথা। কত দিন ধরে এ সেক্টরে কা&জ করছেন আর কেমন সাড়া পাচ্ছেন? উত্তরে দুই উদ্যোক্তার যৌ’থ বয়ান, ‘যৌথভাবে আমাদের উদ্যোগ। আমাদের প্রতি’ষ্ঠানের নাম আলাই অর্গানিক অ্যান্ড হোমমেড গুডস (A’alai Organic And Homemade Good’s)। আমরা ঢাকা জেলা থেকে এক বছর ধরে কাজ করছি। আমাদে’র উদ্যোগ মূলত শুরু হয় চুলের জন্য নারকেল তেল নিয়ে। ‘আমরা

দুজনের বিয়ের পর থেকেই আ’মাদের শাশুড়ি মায়ের হাতে বানানো নারকেল তেল দিয়ে বে’শ উপকার পেয়েছি। সেই জায়গা থেকেই আমাদের নারকেল তেল নি’য়ে কাজ করার চিন্তা শুরু। এ ক্ষেত্রে আমাদের হাজব্যান্ডদের ‘সহযোগিতা ও আগ্রহ ছিল অনেক বেশি। আমরা প্রথমে আমা’দের বন্ধু-বান্ধব ও আত্মীয়-স্বজনদের উদ্যোগের কথা জানাই ‘আর সেখান থেকেই আমরা যথেষ্ট সাড়া পাই। এর পাশাপাশি ‘আমরা খাওয়ার জন্য এক্সট্রা ভার্জিন কোল্ড প্রেসড নারকেল’ তেলের কাজ শুরু করে দিয়েছিলাম।’

তাঁরা আরও বলেন, ‘আমরা যখ’ন এক্সট্রা ভার্জিন সবার সামনে আনলাম, তখন অনেকেই এ সম্প’র্কে জানত না। আবার গুটিকয়েক যারা জানত, তারা বিদে’শি কোল্ড প্রেসড নারকেল তেলই ব্যবহার করত বেশির ভাগ। ‘এ ক্ষেত্রে তখন আমরা এমন কিছু মানুষের কাছ থেকে সাড়া পে’য়েছি, যারা এই তেলে অভ্যস্ত ছিল। আবার আমাদের কাজ শুরুর’ কিছুদিন পর থেকেই করোনার প্রকোপ বেড়ে যায়। আর ‘তখন অনেকেই কোল্ড প্রেসড নারকেল তেলের দিকে ঝুঁক’ছিলেন এর গুণাগুণের জন্য। সে ক্ষেত্রে আমরা কোল্ড প্রেসড নার’কেল তেলের জন্যই বেশি সাড়া পাচ্ছিলাম।’’

পরিবার থেকে কেমন সাড়া পাচ্ছে&ন? সাদিয়া ইসলাম ও তাসরিফা তাবাসসুম বলেন, ‘পরিবা&র থেকে সাড়া পাচ্ছি বলতে, পরিবার পাশে আছে বলেই ‘নারকেলের মতো এত কঠিন জিনিস নিয়ে কাজ করতে পারছি আম’রা।’

আর কী কী পণ্য নিয়ে কাজ করছেন,’ বিক্রিই বা কেমন? এনটিভি অনলাইনের এমন প্রশ্নে সাদিয়া ‘ইসলাম ও তাসরিফা তাবাসসুম বলেন, ‘আমরা মূলত উদ্যো’গ শুরু করেছিলাম নারকেল তেল নিয়ে। এর কিছুদিন পরেই আ&মরা নারকেলের নাড়ু, বরফি, নারকেলের আটা (গুঁড়া) ও সু’গার-ফ্রি পিনাট বাটার। আলহামদুলিল্লাহ, আমাদের এখন পর্যন্ত দুই লাখের ওপর সেল হয়েছে, এর মধ্যে আমাদের মোস্ট :সেলিং পণ্য হচ্ছে এক্সট্রা ভার্জিন কোল্ড প্রেসড নারকেল :>_তেল ও নারকেলের নাড়ু।

উদ্যোক্তা-জীবনে সফল হতে কাদের ভূ’মিকা বেশি ছিল? সাদিয়া ইসলাম ও তাসরিফা তাবাসসুম বলেন, ‘নারকেল বাসায় নিয়ে আসতে আমাদের হাজব্যান্ডরাই মেইন:লি সহায়তা করে। কিন্তু উদ্যোক্তা-জীবনের শুরুর দিকে একবার আমাদের ওরা সময় দিতে পারছিল না ওদের ব্যস্ততার জন্য’। তখন আমরা দুই জা মিলে নিজেরাই নারকেলের আড়তে যাই,& সেখান থেকে নারকেল নিয়ে ফেরত আসতে অনেক রাত হয়ে &যায় এবং সেই রাতেই এর থেকে তেল বানিয়ে কাস্টমারকে পাঠাই ও কাস্টমার যথা সময়ে তেল হাতে পেয়ে ভালো ফিড&ব্যাক জানায়। সেই মুহূর্তটা আসলে বলে বোঝানো যাবে না যে কতটা মধুর ছিল। আমাদের উদ্যোক্তা-জীবনে সফল হতে পরিবারের ভূমিকা ও কাস্টমারের সাপোর্ট আমরা সব সময়ই ‘পেয়েছি।’

উদ্যোক্তা হতে পেরে কেমন লাগছে? তাঁরা বলেন, ‘আমরা গ্রাজুয়েশন শেষ করে সংসার নিয়েই’ বেশি ব্যস্ত ছিলাম। অবশ্যই নারী হিসেবে উদ্যোক্তা হয়ে ওঠা বর্তমা’ন সমাজে অনেক বড় চ্যালেঞ্জের বিষয়। কিন্তু সে ক্ষেত্রে আ’মাদের পুরো পরিবারের সহযোগিতায় আমাদের নারী উদ্যোক্তা হ&’য়ে ওঠা সহজ হয়েছে। আর আমাদের অনুপ্রেরণার মূলে ছিল আমাদের হাজব্যান্ড ও আমাদের শাশুড়ি মা।’

উই-এর ফেসবুক গ্রুপ আপনার উদ্যোক্তা’-জীবনকে কীভাবে প্রভাবিত করেছে? এ দুই উদ্যোক্তা বলে’ন, ‘আমরা শুরুতেই উই-এর (উইমেন অ্যান্ড ই-কমার্স ফোরাম) ‘প্রেসিডেন্ট নাসিমা আক্তার নিশা আপু ও শ্রদ্ধেয় রাজিব আহমে:দ স্যারের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি এত সুন্দর একটি দেশীয় পণ্যের প্ল্যাটফর্ম তৈরি করে দেওয়ার জন্য। গত বছর য:খন পুরো পৃথিবী করোনায় আক্রান্ত ছিল, তখন আমাদেরও সবার মতো কাজ বন্ধ ছিল। তখন আমরা উই-এর দেখা পাই এ&বং আমরা আমাদের কোল্ড প্রেসড:

নারকেল তেল নিয়ে লেখা শুরু করি। আলহামদুলিল্লাহ, আমরা ছয় মাসেই লাখপতির খাতায় নাম লেখা’তে সক্ষম হই। উই-এর মাধ্যমে আমাদের আলাই অর্গানিককে: সবাই সহজেই চিনতে পারে এখন। আমাদের দেশে এখনও নারীদের ঘরে-বাইরে কাজ করতে অনেক বাধার সম্মুখীন হতে হয়’। সে ক্ষেত্রে উই-এর মাধ্যমে অনেক নারী নিজের ঘরে বসেই :নিজের কর্মদক্ষতা কাজে লাগিয়ে পরিবারের পাশে দাঁড়াতে স’&ক্ষম হয়েছে। আর এ কারণে দেশের অর্থনীতিতে ব্যাপক প্রভা:ব পড়ছে বলে আমরা মনে করি। নারী উদ্যোক্তারা যে দেশের ম”’ধ্যেই সীমিত আছে তা নয়, উই-এর হাত ধরে তারা আন্তর্জাতিক প:র্যায়েও কাজ করার ও দেশের জিডিপি বৃদ্ধিতে সহযোগিতা করছে।’’

আগামী দিনের পরিকল্পনা কী? সাদিয়া ইসলা’ম ও তাসরিফা তাবাসসুম বলেন, ‘আগামী দিনের পরিক’ল্পনা &বলতে খাঁটি পণ্য নিয়ে আমাদের পথ চলা শুরু, আর এই খাঁ:টি’ পণ্য খুব সহজেই সবার কাছে পৌঁছে দেওয়াই আমাদের মূল লক্ষ্য’। এ ছাড়া আলাইকে আন্তর্জাতিক ব্র্যান্ড হিসেবে সবার সামনে উপস্থাপনের জন্যও আমরা কাজ করে যাচ্ছি।’বলা হয়, ‘অনেকে লাখপতি? আপনারা হতে পেরেছেন? সাদিয়া ইসলাম ‘ও তাসরিফা তাবাসসুম বলেন, ‘হ্যাঁ, লাখপতি হয়েছি। কি’ন্তু আমরা একদিনে লাখপতি হতে পারিনি। এর জন্য আমাদের অনেক শ্রম দিতে হয়েছে, রাত জেগে কাজ করেছি, বিভিন্ন ভাবে প্রচারণা চালিয়েছি, মানুষের বিশ্বাস অর্জন করতে হয়েছে আমাদের। তবেই ক্রেতা বেড়েছে, তাদের আস্থার জায়,গা তৈরি করতে পেরেছি আমরা। এভাবেই আমরা সফলতা  পেয়েছি ধীরে ধীরে। আর এই সফলতা আম’রা উই-এর হাত ধরেই পেয়েছি।’

Leave a Reply

x