রাতের রানীরা দিনেও থেমে নেই, ঘণ্টাপ্রতি টাকা নিয়ে লকডাউনে দিচ্ছে সার্ভিস

ফেসবুক পেজের মাধ্যমে রাজধানী’তে দীর্ঘদিন ধরেই চলছে দেহ ব্যবসা।

ধানমন্ডি, গুলশান, বারিধারা ও উত্তরা—এসব এলাকা থেকে না’না ব্যক্তি আসেন প্রিয়ার (ছদ্মনাম) বাসায় অতিথি হয়ে। অথচ প্রিয়ার উত্তরার এই ফ্ল্যাটে থাকেন তার এক বান্ধবী’সহ। বেসরকারি একটি বিশ্ব’বিদ্যালয়ে পড়াশোনার পাশাপাশি এই ফ্ল্যাটের বিল মেটাতে হয় ‘অতিথি’দের থেকে প্রাপ্য উপহার’ থেকেই!

সোম’বার, সন্ধ্যা ৭টা। প্রিয়ার ফ্ল্যাটের সামনে টয়োটার একটি থেমেছে। আনু’মানিক ৩২/৩৫ বছরের এক যুবককে নামিয়ে দিয়ে গাড়ি’টি আবার চলে গেল। এই যুবকের গন্তব্য সেই ভবনের চার তলা, অর্থাৎ প্রিয়ার বাসায়। সেই যুবক আবার নেমেও গেলেন, তবে রা’ত ১১টায়।

রাজধানী’জুড়ে করোনাকালে বিধি-নিষেধ উপেক্ষা করে অনেকে ‘অতিথি’ হচ্ছেন বিভিন্ন ফ্ল্যাটে। তবে এই অতিথিরা একটু ভি’ন্ন ঘরানার। প্রিয়ার সেই বান্ধবী জেরিন (ছদ্মনাম) জানালেন সেই গল্প। ফেস’বুকে ‘রিয়েল সার্ভিস’ নামে এক গ্রুপের সদস্য হন প্রিয়া। বিভিন্ন পেজের মাধ্যমে নিজের মুখ না দেখিয়ে নানা ছবি পোস্ট করেন। এসব মাধ্যমেই জো’গাড় হয় ‘অতিথি’।

ফেসবুক পেজের মাধ্যমে রাজ’ধানীতে দীর্ঘদিন ধরেই চলছে দেহ ব্যবসা। চোখ ধাঁধানো ছবি আর শারী’রিক তথ্যের নিচে দেওয়া থাকে যোগা’যোগের জন্য মোবাইল নম্বর। এভাবেই ব্যবসায় চালিয়ে যাচ্ছিল চক্র’গুলো।

করোনা’কালের আগে বিভিন্ন তারকা হোটেলে প্রিয়া’দের ডাক পড়লেও, এখন তা চলে ফ্ল্যাটে। প্রতি ঘণ্টা হিসেবে গুন’তে হয় টাকা।

Leave a Reply

x