যশোরে পার্লারের অন্তরালে দেহ ও মাদক ব্যবসা (ভিডিও)

যশোর শহরের কার’বালা এলাকায় নাইট কুইন বিউটি পার্লারের মালিক নাজ’মার বিরুদ্ধে পার্লারের নামে দেহব্যবসা ও ইয়াবা বিক্রির অভি’যোগ করেছে এলাকার সচেতন মহল।

সমাজের আইন শৃংখলা নিয়’ন্ত্রনে রাখতে ৫০ জনের স্বাক্ষরিত একটি অভিযোগ পুলিশ সুপারের নিকট অভিযোগ দিয়েছে।

বৃহস্পতি’বার সকালে এলাকাবাসি পুলিশ সুপার মুহাম্মদ আশরাফ হোসেনের কাছে অভি’যোগ দিলে বিষয়টি তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দিয়েছে পুলিশ সুপার।

অভিযোগে জানা যায়, বিউটি’শিয়ান নাজমা দীর্ঘদিন ধরে বিউটি পার্লার ব্যবসার আড়ালে বি’ভিন্ন এলাকার স্কুল কলেজ পড়ুয়া মেয়েদের দিয়ে দেহ’ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। সেই সাথে আছে তার মাদক ব্যবসাও। তার পার্লারে চলে ইয়াবা বিক্রি ও সেব’নের আড্ডা। নাজমার সাহায্য’কারী হিসাবে আসেন বাড়ির মালিক আজিজুল ইসলাম।

এর আগে আজিজুল ইসলাম নাজমার বাসা থেকে ইয়াবা ও কলগার্ল’সহ পুলিশের হাতে আটক হন। বেশ কয়েক মাস কারা’ভোগ শেষে জামিনে মুক্তি পেয়ে আবারও সে মাদক ব্যবসায় জড়িয়ে পড়েছে।

নাজমার কাছে প্রায় ১০ থেকে ১২ জন মেয়ে বস’বাস করে। তারা বিভিন্ন কলেজে লেখাপড়া করে। তাদের মধ্যে চৌগাছা আলফা’তুন্নেছা অনু, মহেশপুরের ডালিয়া, বেনা’পোলের আখি, ঝিকর’গাছার বৃষ্টি, চুয়াডাঙ্গার তানিয়া, কোটচাদ’পুরের শাহনাজ, বেজপাড়ার ইতি, ঝুমঝুম’পুরের পিয়া, নওয়াপাড়ার সুমি, হামিদ’পুরের সানজিদা অন্যতম।

এলাকা’বাসীর অভিযোগ, পার্লার ব্যবসা নাজমার লোক দেখানো। যশোর শহর’সহ আশপাশের এলাকায় খরিদ্দার ঠিক করে তাদের কাছে এসব মেয়েদের পাঠানো এবং ইয়াবা ব্যবসা করা নাজ’মার মুল উদ্দেশ্য। মেয়েরা তাদের বান্ধবীদের আয়ের উৎস দেখিয়ে নাজমার কাছে নিয়ে আসে। আর নাজমা তাদের মোটা অংকের টাকার লো’ভ দেখিয়ে এ পথে নামিয়ে দেয়।

এভাবেই সহজ সরল মেয়ে অপ’রাধ জগতে পা রাখছে। এব্যাপারে এলাকাবাসি অনেকবার বাড়ির মালিক আজিজুল ইসলাম ও নাজমা’কে নিষেধ করা সত্বেও তাদের কার্যকলাপ চালিয়ে যাচ্ছে। এলাকার পরিবেশ এমন হয়েছে যে পরিবার পরিজন নিয়ে মান’সম্মানের সাথে বসবাস করা কঠিন হয়ে পড়েছে।

Leave a Reply

x