ভাগলপুরে জন্ম নিলো, ব্রিটিশ সন্তান, ডাক্তাররা জানিয়েছেন হাজারে একজন এমন সন্তান, জন্ম হয় করতেও, অনেক উপকারী ভূমিকা পালন করে।

ভাগলপুরে জন্ম নিলো, ব্রিটিশ সন্তান, ডাক্তাররা জানিয়েছেন হাজারে একজন এমন সন্তান, জন্ম হয় করতেও, অনেক উপকারী ভূমিকা পালন করে।

আমড়ার অনেক আয়ুর্বেদিক গুণাগুণ”ও রয়েছে। এটিকে আয়ুর্বেদে বলা হয় আম্রতক। এ ছাড়া আমড়া’গাছেরও রয়েছে অনেক ঔষধি গুণাগুণ। এ গাছের বিভিন্ন ”অংশ ডায়রিয়া, কানের দেশ ও বিদেশের এমন ‘অনেক’ ঘটনা আছে যা মানুষকে বেশ অবাক করে। এদি’কে ভাগলপুরে জওহরলাল নেহেরু হাসপাতাল থেকে একটি অনন্য ঘটনা’ প্রকাশ্যে এসেছে। প্রকৃতপক্ষে এখানে একটি’ অনন্য শিশুর জন্ম হয়েছে। এই বাচ্চাটি সাধারণ বাচ্চাদের থেকে সম্পূর্ণ আলাদা। এই শিশুটি সম্পূর্ণ সাদা। শুধু তাই নয় ‘এই শিশুর চুল এবং ভ্রু’ সব সাদা রঙের। যে কেউ এই শিশুটিকে ‘দেখে ভয় পেয়ে যাচ্ছে।

হাসপাতালে উপস্থিত’ ডাক্তার ও নার্স কর্মীরা’ এই শিশুটিকে দেখে বেশ অবাক। প্রকৃতপক্ষে যে ‘বিষয়ে আমরা আপনাকে জানাতে যাচ্ছি, ভাগ’লপুরে এক দম্পতি গভীর রাতে হাসপাতালে এসেছিল। সেখানে মহিলাটিকে ভর্তি করা হয় এ’বং ডাক্তাররা বলে,”তার শরীরে হিমোগ্লো’বিন কম আছে তাই তার অস্ত্রোপচার করতে হয়েছিল এবং’ গভীর রাতে এই অনন্য’ শিশুটির জন্ম হয়েছিল।””

নবজাতক শিশুটি’র জন্মের প’র পিতা-মাতার আনন্দের সীমা নেই। একই সাথে হাসপাতালে রোগীর স্বজনরা এই শিশুটিকে দেখে খুবই খুশি এবং এর’ সাথে বেশ অবাক হয়ে”ছে। কিছু মানুষ শিশুটির সাথে সে”লফি তুলতে খুব “আগ্রহী হয়ে উঠেছে এবং এই শিশুর রং সম্পূর্ন সাদা হওয়ায় শিশুটিকে” মনে হচ্ছে এই শিশুটি ইউরোপের কোন’ দেশের বাচ্চা। চিকিৎসকরা বলছেন,”জহরলাল নে’হেরু মেডিকেল কলেজে এ’ই ধরনের শিশুর জন্মের ঘটনা এই ‘।”’

ডাক্তাররা বলেছেন যে,”এই ধরনের শিশু শুধুমাত্র হাজার এবং লক্ষে একটাই দেখা যায়।” ‘ডাক্তাররা বলেছি’লেন যে,”শরীরে এক প্রকার রঞ্জক কণার অনুপস্থিতির কারণে এমন হয়।” ডাক্তার বলেছিলেন যে,”অ্যা’লবিনোর কারণে ‘এটি ঘটে। একে অ্যাক্রোমিয়া বলে। আমাদে’র শরীরে মেলানিন না’মক একটি যৌগ আছে যা দেহে’র কা”লো রঙের জন্য দায়ী। যদি সেটি শরীরে উপস্থিত না হয় তাহ”লে এরকম সাদা শি”শু””র জন্ম হয়।”

তারা বলেছেন যে,”এটি এক ধরনে’র ব্যাধি হিসেবে বিবেচিত হয়। যেহেতু আমাদের এ’খানে প্রখর রোদ তাই ‘এই ধরনের ‘শিশুরা প্রখর রোদ স’হ্য করতে সক্ষম হয় না’। যদি সে অনেকক্ষণ রোদে দাঁড়িয়ে ‘থাকে তবে সমস্যা অ’নুভব করতে শুরু করে। বিশেষ করে ‘বলেছেন এই ধরনের শিশুদের ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়”’এবং একইসাথে বিশে’ষজ্ঞরা’ বলেছেন,”অন্যান্য বাচ্চা”দের মাঝে ‘তাদের জনসমক্ষে হাসির বস্তু হতে হয়।””

Leave a Reply

x