বেড়ানোর কথা বলে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ (ভিডিও)

বেড়াতে নিয়ে যাওয়ার কথা ব’লে নবম শ্রেণীর এক ছাত্রী (১৪) ধর্ষণের শিকার হয়েছে বলে অভি’যোগ পাওয়া গেছে। এই ঘটনায় একজন’কে আটক করেছে পুলিশ। তবে প্রধান আসামী ধর্ষক আব্দুর রহমান’কে আটক করতে পারেনি পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে টাঙ্গাইলের নাগরপুর উপজেলার সহবত’পুর ইউনিয়নের পাঁচ ইর্তা গ্রামে। এ ঘটনায় নাগরপুর থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

এদিকে স্কুলছাত্রী’কে ধর্ষণে সহযোগিতার অভিযোগে মোঃ সুমন মিয়া (২৮) নামে এক যুবক’কে আটক করেছে পুলিশ। আটক’কৃত সুমন মিয়া পাঁচ ইর্তা গ্রামের আবুল হাসেম মিয়ার ছেলে। গত শুক্র’বার রাত নয়টার দিকে উপজেলার সহবত’পুর ইউনিয়নের সারাংপুর গ্রামের নির্জন মাঠে ধর্ষণের ঘটনা’টি ঘটে।

এলাকা’বাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, জেলার নাগরপুর উপজেলার পাঁচ ইর্তা গ্রামের এমদাদ মাস্টারের ভবন নির্মাণ শ্রমিক মাসুদ’কে সাথে নিয়ে শুক্রবার সন্ধ্যায় বাড়ির সামনের পাকা রাস্তায় হাট’ছিল ওই ছাত্রী। কিছু দূর যাওয়ার পর একই গ্রামের ওয়াজেদ আলীর ছেলে আব্দুর রহমানের সাথে তাদের দেখা হয়। এ’সময় বেড়ানোর কথা বলে আব্দুর রহমান ওই স্কুল ছাত্রী ও তার বন্ধু মাসুদ’কে মোটরসাইকেল যোগে পার্শ্ববর্তী সারাংপুর এলাকায় নিয়ে যায়। এরপর আটক’কৃত সুমনের সহযোগিতায় আব্দুর রহমান ওই স্কুল’ছাত্রীর বন্ধু মাসুদকে ভয় দেখিয়ে তাড়িয়ে দেয়।

এরপর আব্দুর রহমান ওই ছাত্রী’কে জোর করে সারাংপুর মাঠে নিয়ে ধর্ষণ করে পালিয়ে যায়। পরে নাগরপুর থানা পুলিশ খবর পেয়ে ওই ধর্ষিতা’কে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে। এ ব্যাপারে নাগরপুর থানার ওসি (তদন্ত) গোলাম মোস্তফা জানান, ধর্ষিতা ওই স্কুল’ছাত্রী বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছে। দায়েরকৃত মামলার ভিত্তিতে ধর্ষণে সহযোগিতা করায় সুমন নামে এক যুবক’কে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। প্রধান অভিযুক্ত ধর্ষক আব্দুর রহমান’কে আটকের চেষ্টা অব্যাহত আছে।

Articles You May Like

Leave a Reply

x