বাংলাদেশে মধু চাষে লাখ, লাখ টাকা আয়ের হাতছানি..!

শরিয়তপুরের মধু ব্যবসায়ী আনোয়ার, সর্দারের পরিবার গত ৮০ বছর ধরে বংশ পরম্পরায় এই, ব্যবসা করে যাচ্ছেন। কিন্তু গত বেশ কয়েক বছর যাবত তারা বাণিজ্যিক-ভিত্তিতে মধু চাষ ক,রছেন।
বাক্সে করে মৌমাছি নিয়ে দেশের বিভিন্ন জেলায়, গিয়ে মধু সংগ্রহ করে আনোয়ার সর্দারের দল। প্রতি ব,ছর আনোয়ার সর্দার গড়ে ১৫০ মন মধু সংগ্রহ করেন।

একশো চল্লিশটি বাক্স নিয়ে আনোয়ার সর্দারের, দল বিভিন্ন জেলায় ঘুরে বেড়ায়।
“একেকটা বাক্সে সর্বনিম্ন ৫০, হাজার পোকা থাকে। যেগুলো ডাবল বক্স সেখানে এক লাখ পোকা থাকে,” জানালেন আনোয়ার, সর্দার।
এর প্রতি কেজি কমপক্ষে ৪০০,, টাকা হলে বাজারমূল্য দাঁড়ায় চব্বিশ লাখ টাকা।
আনোয়ার সর্দারের মতোই বাণিজ্যিক-ভিত্তিতে ম,ধু চাষ করেন চুয়াডাঙ্গার বাসিন্দা সোহেল আবদুল্লাহ।

তিনি জানালেন, মধু সংগ্রহের জন্য এখন তার, ২৮০টি বাক্স আছে।
“এটা অবশ্যই প্রফিটেব,ল বিজনেস,” বলেন মি. আবদুল্লাহ।
তিনি জানান, চলতি বছর তিনি সব, মিলিয়ে ৭০ মনের মতো মধু সংগ্রহ করতে পেরেছেন।
প্রতি মন মধু ৮,০০০ টাকা দরে বিক্রি, করেছেন। এর মধ্যে বিভিন্ন জেলায় গিয়ে থাকা, পরিবহন এবং, খাবার খরচ অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

আরো পড়তে পারেন:
বাদাবনের ছবি তুলে বিজয়ী বাংলাদেশি, আলোকচিত্রী
ভাতের চাইতে বেশি পুষ্টিকর, ঢেমশি বাংলাদেশে কতটা সম্ভাবনাময়
বাংলাদেশে অর্থকরী ফসল হলেও লাক্ষার চাষ, কমার কারণ কী?
ক্ষেতে ফলছে না কিন্তু বাজারে, যেভাবে মিলছে হরেক নামের চাল
লাভজনক ব্যবসা
বাংলাদেশে মধু চাষ নিয়ে গবেষণা করেছেন, চট্টগ্রাম জেলার সীতাকুণ্ড উপজেলার কৃষি কর্মকর্তা, মোহাম্মদ হাবীব উল্লাহ।

তিনি বলেন, মুরগী যেমন, চাষ করা হয়, তেমনি এটা মৌমাছির ফার্ম। তাদের জন্য ঘর বানিয়ে দেয়া হয়। মৌমাছিরা সেখানে, থাকে।
“মৌমাছির খাবার যেখানে পাওয়া যায়। এ বাক্সগুলো, সেখানে নিয়ে যাওয়া হয়। সেক্ষেত্রে সরিষার, মাঠ হতে পারে, লিচুর বাগান হতে পারে,” বলেন মি. হাবীব উল্লাহ।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে বাণিজ্যিকভাবে মধুর চাষ, অনেক বেড়েছে। মধু সংগ্রহের পেশায় চার থেকে, পাঁচ হাজার মানুষ কাজ করে। বাণিজ্যিকভাবে মধু চাষ করলে এটা পেশা হিসেবে নেয়া, সম্ভব।
“আমার একজন মৌ চাষি বাৎসরিক ২০০ মন মধু, সংগ্রহ করতে পারে,” বলেন মি. হাবীব উল্লাহ।
মধুর কেজি গড়ে ৪০০ টাকা ধরলে এ,র বিক্রয়মূল্য দাঁড়ায় প্রায় ৩২ লাখ টাকা।

Leave a Reply

x