পাপিয়ার অধীনে কাজ করতো ১৭০০ যৌনকর্মী,

নরসিংদী জেলার যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন শামীমা নূর পাপিয়া ।

অবৈধ ব্যবসা এবং যৌন ব্যবসায়ীর কারণে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

পাপিয়াকে রিমান্ডে নেওয়ার পর থেকে তার অপকর্মের অনেক চাঞ্চল্যকর তথ্য বেরিয়ে আসছে।

পাপিয়ার যে অন্যদেরকে মেয়েদেরকে দিয়ে দেহ ব্যবসা ছিল, তা সারা বাংলাদেশে বিস্তৃত ছিল, এবং দেশের বাহিরেও ছিল তার নেটওয়ার্ক ।
পাপিয়াকে রিমান্ডে নেওয়ার পর সে বলে তার অধীনে ১৭০০ বেশি যৌনকর্মী কাজ করতেন।

সারা বাংলাদেশে এসব যৌন কর্মীর বিস্তৃত ছিল।
যা নিয়ন্ত্রণ করত পাপিয়া।

পাপিয়া এসব যৌনকর্মীদের কে ৬০০০ টাকা থেকে ৩০০০০ হাজার টাকার মধ্যে বেতন দিয়ে তার অধীনে রাখত ।

জানা গেছে..
ঢাকা গুলশানের ওয়েস্টিন হোটেলে পাপিয়ার কিছু নির্ধারিত রুম ছিল,
যেখানে সে ভিআইপি কাস্টমার দের কে নিয়ে এবং সুন্দরী মেয়েদেরকে নিয়ে বৈঠক করতেন।

পরবর্তীতে সে সব ভেবে কাস্টমাররা সুন্দরী মেয়েদেরকে নিয়ে নির্দিষ্ট রুমে যেতেন ।

Articles You May Like

Leave a Reply

x