ন্যাটোর নতুন সদস্য: তুরস্কের বিরোধিতার, নেবে না যুক্তরাষ্ট্র..!

যে সুইডেন এবং ফিনল্যান্ডের ন্যাটো সদস্যপদের, বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে, তার জন্য যুক্তরাষ্ট্র দায়ী নয়। এই সমস্যা সমাধানের দায়ও যুক্তরাষ্ট্রের, নয়। মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র, নেড প্রাইস এ কথা বলেছেন।
বার্তা সংস্থা রয়টার্সের সঙ্গে শুক্রবার দেওয়া এক টেলিফোন, সাক্ষাৎকারে নেড প্রাইস একথা বলেন। তিনি আরো, বলেন, ফিনল্যান্ড এবং সুইডেনের ন্যাটোতে যোগদানের বিষয়ে তুরস্কের, মনোভাবের বিষয়টি যুক্তরাষ্ট্র এবং তুরস্কের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সমস্যা নয়।

তবে মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র আশাবাদ ব্যক্ত, করে বলেন, হোয়াইট হাউস তুরস্ক সরকারের সঙ্গে আলোচনা করছে এবং যুক্তরাষ্ট্র নিশ্চিত যে, সুইডেন এবং ফিনল্যান্ডের ন্যাটোর সদস্যপদ পাওয়ার প্রশ্নে, তুরস্কের অবস্থানের পরিবর্তন হবে।

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ, এরদোয়ান দুই স্ক্যান্ডিনেভীয় দেশকে ন্যাটোর সদস্য করার বিরোধিতা, করছেন। তিনি দাবি করেছেন, সুইডেন ও ফিনল্যান্ড সন্ত্রাসী হিসেবে চিহ্নিত কুর্দি সংগঠন পিকেকের, সদস্যদের রক্ষা করার জন্য আশ্রয় এবং সমর্থন দিচ্ছে। তিনি, সুইডেনে আশ্রয়প্রাপ্ত ৩০ জন পিকেকে ‘সন্ত্রাসীকে’ বহিষ্কারের, দাবি করেন।
এছাড়াও সুইডেনের সঙ্গে তুরস্কের অস্ত্র বিক্রি না করাসহ দ্বিপাক্ষিক একাধিক বিষয়ে মতবিরোধ রয়েছে। বিষয়গুলো সুইডেন এবং ফিনল্যান্ডের ন্যাটোতে সদস্যপদ লাভের পথে, অন্তরায় হয়ে দাঁড়িয়েছে। উল্লেখ্য, ন্যাটোর নতুন সদস্যপদ দেওয়ার জন্য সব সদস্যের, অনুমোদন প্রয়োজন।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দফতর মনে করছে, তুরস্কের উত্থাপিত,, উদ্বেগগুলোর আশু সমাধান করা হবে এবং ‘ন্যাটো’ঐক্যবদ্ধভাবেই ফিনল্যান্ড, এবং সুইডেনের যোগদান প্রক্রিয়ার বিষয়ে, ঐকমত্যে পৌঁছতে পারবে।

মুখপাত্র নেড প্রাইস বলেন, ‘এটি যুক্তরাষ্ট্রের নিজের, কোনো ইস্যু না হলেও হোয়াইট হাউস বিষয়টি নিয়ে উদ্বিগ্ন।,, সমস্যাটির দ্রুত সমাধান করা উচিত এবং এব্যাপারে যে কোন, সহযোগিতার জন্য যুক্তরাষ্ট্র প্রস্তুত।’
যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জ্যাক সুলিভান, বৃহস্পতিবার বলেছিলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র নিজেকে সুইডেন এবং, তুরস্কের মধ্যকার সংঘাতের বিপরীতে কোনো একটি পক্ষ হিসাবে দেখতে চায় না।’ তার একদিন পরে, নেড প্রাইসের বিবৃতিটিও একই ইঙ্গিত দিল বলে, মনে করছেন সুইডেনের একাধিক বিশেষজ্ঞ।

Leave a Reply

x