ক্রিকেট অনুশীলন করতে মাঠে নেমে পড়লেন ‘মুশফিকুর রহিম’

বাংলাদেশ ক্রিকে’টের সবচেয়ে পরিশ্রমী ক্রিকেটার কে? বিনা দ্বিধায় সবাই মুশফিকুর রহিমের নামটি সবার আগে বলবে। জাতীয় দলের সূচি থাকুক বা নাই থাকুক, মুশফিকুর রহিম মাঠে থা’কেন।

অনুশীলনে ঘণ্টার পর ঘণ্টা কাটিয়ে দেন। ফিটনেস নিয়ে প্রচুর কাজ করেন। মিরপুরের হোম অব ক্রিকেট গ্রাউন্ড শের-ই-বাংলা স্টেডি’য়ামই যেন ঘরবাড়ি মুশফি’কের।

কিন্তু মধ্য মার্চে বাংলা’দেশে করোনা বিপর্যয় শুরু হওয়ার পর থেকে স্টেডিয়াম থেকে দূরে এই ক্রিকেটার’সহ সকলেই। স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য গৃহবন্দি হয়ে সময় কাটাচ্ছেন সকলে।

বিসিবি’র দেওয়া রুটিন মেনে ফিটনেস নিয়েও কাজ করছেন। কিন্তু অনুশীলন, সবুজ ঘাসকে প্রচুর মিস করছিলেন মুশফিক। বিসিবি’র কাছে মাঠে ফিরে একা অনুশীলনের জন্য অনুমতিও চেয়ে’ছিলেন। কিন্তু মেলেনি।

কিন্তু এভাবে সবুজ ঘাসের ক্যানভাসে হাঁটা হবে না কতদিন! মুশফিক সেই হিসেবে আরও যেতে চাননি। অনুশীলন না হোক, প্রিয় মাঠটি দেখতেই মির’পুরের সবুজ গালিচায় গেলেন মুশফিক। আর সেখানে নিজের ছবি তুলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সবাইকে জানালেন, প্রিয় মাঠটিকে খুব মিস করছেন তিনি।

তাঁর ভাষ্যে, ‘সালাম সবাইকে। আমি এই অসাধারণ মাঠটি অনেক বেশি মিস করছিলাম। একমাত্র আল্লাহ জানে আবার কখন আমরা অনুশীলন শুরু করতে পারবো।’

মুশফিক মিরপুরের শের-ই-বাংলা স্টেডিয়াম সকল স্বাস্থ্যবিধি মেনেই গিয়ে’ছিলেন। এছাড়া বিসিবিও মাঠ এখন জীবাণু’নাশক এবং সঠিক পরিচর্যায় নতুন করে গড়ে তুলেছে।

তবুও এই করোনার সময় মুশফিকের মাঠে যাওয়া কেন? মুশফিকের অগ্রজ মাশরাফির এক বাক্য থেকে সেটির পরিষ্কার ধারণা পাওয়া যায়।

তামিমের লাইভ আড্ডায় মুশফিককে নিয়ে মাশরাফি মজাচ্ছ্বলেই বল’ছিলেন, ‘মাঠ এবং অনুশীলন ছাড়া তো মুশফিক তো বেশিদিন থাকতে পারবে না।

দম বন্ধ হয়ে মারা যাবে।’ আর তাই হয়ত নিজেকে চাঙা রাখতে, সবুজ গালিচার বুকে প্রাণভরে নিঃশ্বাস নিতেই মিরপুরে গেলেন মুশ’ফিক।

Articles You May Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *