কাঁদতে কাঁদতে ডা. সাবরীনা বললেন, জীবনেও অনৈতিক কাজ করিনি

করোনার ভুয়া রিপোর্ট কেলেঙ্কা’রিতে গ্রেফতার হওয়া জেকেজি হাসপাতালের প্রধান নির্বাহী (সিইও) আরিফ চৌধুরীর সঙ্গে যোগসা’জশের বিষয়টি অস্বীকার করেছেন জেকেজির অভিযুক্ত চেয়ারম্যান ডা. সাবরীনা আরিফ।

তিনি আরও দাবি করেন, আরিফের সাথে তিনি আর সংসার করছেন না। রোববার পুলিশের হাতে গ্রেফতার হওয়ার আগে গণ’মাধ্যমে সাবরীনা দাবি করেন, জেকেজির সিইও আরিফ চৌধুরী এ মুহূর্তে আমার স্বামী না। আমরা আলাদা থাকছি। ডিভোর্স লেটার পাঠিয়েছি। আরও দুই মাস লাগবে ডিভোর্স কার্যকর হতে।

ডা. সাবরী’নার বক্তব্য জানতে তার কর্মস্থল রাজধানীর শেরে বাংলা নগরের জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটে গেলে তিনি প্রথমে হাসপাতা’লের পরিচাল’কের অনুমতি ছাড়া কথা বলতে রাজি হননি।

এক পর্যায়ে সাবরীনা উত্তেজি’ত হয়ে বলেন, আমি জেকেজি হাসপাতালের চেয়ার’ম্যান নই। আপনারা আগে কাগজ দেখান, তারপর আমার ব্যাখ্যা চান। এছাড়া, লক্ষবার প্রশ্ন করলেও আমি কোনো উত্তর দিব না।

পরে তিনি আবার দাবি করেন, জয়েন্ট স্টকে আপনারা খবর নেন। আমি কোনো কোম্পানির চেয়ারম্যা’ন নই। আমি জেকেজির স্বাস্থ্য’কর্মীদের আমি ট্রেনিং দিতাম। আমি শুধুর ট্রেনিং সেন্টার পর্যন্ত যেতাম।

হাসপাতা’লের সাইবোর্ডে তার নামের শেষে এখনও জেকেজি হাসপাতালের গ্রেফতার’কৃত প্রধান নির্বাহী আরিফ চৌধুরী নামের শেষাংশ যুক্ত আছে এই প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এমনও তো হতে পারে এটা আমার আসল নাম না। ফেসবুকী’য় নাম। এটা এখনও পরিবর্তন করা হয়নি। দ্রুতই করবো।

এক পর্যায়ে কাঁদতে কাঁদতে সাবরীনা দাবি করেন, কোনো কিছুর মালিক না হয়ে এতটা…. আমি শিকার হচ্ছি, এটা কী মনে করেন আপনা’রা। এবং আমি জানি, আমি কোনো অনৈতিক কাজ আজকে কেনো জীবনেও করিনি। আমি এ বিষয়ে কনফিডে’ন্ট।

রোববার দুপুরে তাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তার রিমান্ড চাওয়ার কথা জানিয়েছেন পুলিশের তেজগাঁও জোনের ডিসি মোহাম্মদ হারুন অর রশিদ।
সূত্রে: যমুনা টিভি

Articles You May Like

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *