ইতিহাসের সামনে মরিনিও..!

আর এক’টা ম্যাচ জিতলেই ইতি’হাস!

এক স’ময় যেসব কোচদের সঙ্গে পাল্লা দি’য়ে লড়াই করতেন, সে’ই পেপ গার্দিওলা, ইয়ুর্গেন ক্ল’প কিংবা কার্লো আনচে’লত্তির চেয়ে জোসে মরিনিও খানি’কটা পিছিয়েই গিয়ে’ছেন। গার্দিওলা-ক্লপ এখ’নও ইংলিশ প্রিমিয়ার লি’গে প্রতি মৌসুম শিরো’পার জন্য হাড্ডা’হাড্ডি লড়াই করেন, আনচেলত্তি ‘আর ক্লপ কিছু’দিন পরেই লড়বেন ইউরো’পের সর্বোচ্চ প্রতিযো’গিতা চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতার স’ম্মান অর্জন করে নেও’য়ার লক্ষ্যে।

কিন্তু মরি’নিও? চেলসি, রিয়াল মাদ্রিদ কিং’বা ইন্টার মিলা’নের হয়ে একের পর এক সাফল্য পা’ওয়া এই কোচ খানি’কটা আড়ালেই পড়ে গিয়ে’ছেন যেন। চেলসি, ম্যান’চেস্টার ইউনাইটেড কিং’বা টটেনহামের পাট চুকি’য়ে ফিরে গেছেন ইতালিতে, দা’য়িত্ব নিয়েছেন এএস রোমা।

যে কো’চ দুটি আলাদা আলাদা ক্লাবের হ’য়ে চ্যাম্পিয়নস লি’গ জেতার কৃতিত্ব রচনা করে’ছিলেন এক’কালে, সেই কোচই এখন রোমাকে নি’য়ে লড়াই করেন তৃ’তীয় সারির ইউরোপীয় প্রতিযো’গিতা উয়েফা কনফা’রেন্স লিগ জেতার লক্ষ্যে। সম্মান ও মর্যা’দার দিক দি’য়ে যে শিরোপাটা চ্যাম্পিয়নস লি’গের মতো শীর্ষস্থা’নীয় প্রতিযোগিতার তুলনায় বেশ খানি’কটা পি’ছিয়েই।

এবার সে প্রতি’যোগিতারই ফাইনালে রোমা’কে তু’লেছেন মরিনিও। প্রতিপক্ষ ডাচ ক্লাব ফেই’নুর্দ। আজ দিবাগত রাত’ একটায় আলবেনিয়ার অ্যা’রেনা কমবাতে’রেতে কনফারেন্স লিগের শিরো’পা জেতার জন্য লড়’বে এই দুই ক্লাব। আর ম্যাচটা জিত’লেই, ইতিহাসের অং’শ হয়ে যাবেন মরিনিও। প্রথ’ম কোচ হিসেবে তিন’টি আলাদা আলাদা পর্যায়ের ইউ’রোপীয় শিরোপা জে’তার কৃতিত্ব গড়বেন তিনি। এফ’সি পোর্তো আর ইন্টা’রকে দুবার চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতিয়ে’ছিলেন আগেই, পো’র্তো আর ম্যানচেস্টার ইউ’নাইটেডকে জিতিয়ে’ছেন উয়েফা কাপও (বর্তমানে যা ই’উরোপা লিগ নামে পরি’চিত)।

বাকি ছি’ল শুধু এই কনফারেন্স লিগ’টাই। সে চক্রও পূরণ হয়ে যা’বে যদি আজ ফেইনুর্দকে হা’রাতে পারে রোমা। এর আ’গে তিনটি আলাদা আ’লাদা দলকে নিয়ে চারবার ইউরো’পীয়ান প্রতিযোগিতার ফাইনা’লে উঠে জয়ের স্বাদ পেয়ে’ছেন মরিনিও। লক্ষ্য এ’বার পরিসং’খ্যানটা আরেকটু সমৃদ্ধ করা। মরিনি’ওর নিজের মাথা’তেও বেশ ভালোভাবেই ঘুর’ছে বিষয়টা, ‘আমি জি’তলে প্রত্যেকটা ইউরোপিয়ান শি’রোপা জেতা প্রথম কোচ’ হব। যদি আমি জিতি আ”রকি।’

২০০৩ সা’লে স্কটিশ ক্লাব সেল্টিককে হারিয়ে মরি’নিওর পোর্তো উ’য়েফা কাপ জেতে। পরের বছরই ফরা’সি ক্লাব মোনা’কোকে হারিয়ে জিতে নেয় চ্যা’ম্পিয়নস লিগ। ২০১০ সালে বা”য়ার্ন মিউনিখকে হারি’য়ে ইন্টারকে মিলা’নের মাধ্যমে দ্বিতীয়বা’রের মতো চ্যাম্পি’য়নস লিগের স্বাদ পান মরি’নিও। ২০১৭ সালে আয়াক্স’কে হারিয়ে মরিনিওর ইউনাই’টেড জেতে ইউ’রোপা লিগ।

তবে রোমা ফাই’নাল জিতুক বা না জি’তুক, নিজে ইতিহা’সের অংশ হন বা না হন, মরিনি’ওর কাছে এই মৌসুমে দ’লের পারফরম্যান্স বেশ ইতিবা’চক মনে হচ্ছে, ‘আ’মি কোনো জাদুমন্ত্রের ওপর বি’শ্বাস করি না। ফাই’নালে ওঠার পর এখন আর ওভাবে বি’শেষ কিছু করা’র নেই। শুধু একটা দল হয়ে খে’লতে হবে আমা’দের। নিজেদের সামর্থ্যের ওপর আ’স্থা রাখতে হবে, সীমা’বদ্ধতাগুলো জেনে রাখতে ”হবে। ফাইনালে যা-ই হো’ক না কেন, মৌসুমটা আমা’দের জন্য বেশ ইতিবাচ’ক ছিল।’

Leave a Reply

x