অবশেষে নোবেলকে ডিভোর্স দিলেন তার স্ত্রী..!

ভারতীয় টিভির সারেগামাপা থেকে জ:নপ্রিয়তা পাওয়া গায়ক নোবেল। তবে প্রতিযোগিতাটি থেকে ”উঠে আসার পর গানের চেয়ে বিতর্কিত কর্মকাণ্ড নিয়েই বেশি ‘আলোচনায় থেকেছেন তিনি। তাই নোবেল মানেই যেনো বিতর্ক। “যে বিতর্কের শেষ কোথায় কেউ জানে না। সম্ভবত বিতর্কের ‘সঙ্গে থাকতেই তিনি বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন এই গায়ক।”

এবার এই নোবেল আলোচনায় এলেন নতুন ‘করে। নোবেলকে ডিভোর্স লেটার (তালাকের নোটিশ) পাঠিয়েছেন  তার স্ত্রী মেহরুবা সালসাবিল। গত ১১ সেপ্টেম্বর এই ‘তালাকনামা নোবেলের ঠিকানায় পাঠানো হয়েছে। জানা যা য়, নোবেলকে ২০১৯ সালের ১৫ নভেম্বর বিয়ে করেছিলেন মেহরুবা সালসাবিল। ভালোবেসে বিয়ে করেছিলেন তারা। কি ন্তু দাম্পত্য জীবন সুখের হয়নি তাদের। শেষমেষ বিচ্ছেদের, পথে হাঁটলেন সালসাবিল।

বুধবার (৬ অক্টোবর) দুপুরে বিষয়টি নিশ্চিত করে,ছেন তিনি নিজেই।

সালসাবিল বলেন, ‘নোবেলের সঙ্গে সংসার ক,রা সম্ভব না। তাই তাকে ডিভোর্স লেটার পাঠিয়েছি। এখন যদি সে  ‘সিগনেচার করে দেয় তাহলে ডিভোর্স হয়ে যাবে। আর সিগনে’চার না করলে তিনমাস পর অটোমেটিক ডিভোর্স কার্যকর হবে।’’

কী কারণে তালাক চাইছেন? উত্তরে সালসাবিল ব’লেন, ‘নোবেল মানসিক অসুস্থ। সে মাদক এবং নারীতে আসক্ত। ‘বিভিন্ন সময় আমাকে নির্যাতন করেছে। এসব কারণে ওর সাথে  সংসার করা সম্ভব না। তাই ডিভোর্স লেটার (তালাক নোটিশ) পা’ঠিয়েছি।’

তালাক নোটিশে সালসাবিল উল্লেখ করেছেন, স্ত্রী হি ‘সেবে দুই বছরের খোরপোষ দিতে অক্ষমতা, স্বামীর মস্তিস্ক ‘বিকৃত, কাবিনের শর্ত লঙ্ঘন, বিবাহ প্রদত্ত কাবিন শর্ত লঙ্ঘ’ন, চরিত্রহীনতা ও নির্যাতনকারী, পরকীয়ায় লিপ্ত, প্রচন্ডভাবে মারধর করে এবং মাদকদ্রব্য গ্রহণকারী হওয়ায় নোবেলের সা’থে সংসার করতে চাইছেন না সালসাবিল।’

এদিকে নোবেল নিজেও তার ফেসবুকে বিচ্ছে’দের ইঙ্গিত দিয়েছেন। বুধবার (৬ অক্টোবর) নিজের ফেসুব’কে লিখেছেন, ‘ডিভোর্সড’। তাতে মিশ্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে”ছেন নেটিজেনরা। এর আগে তাদের মনোমালিন্য প্রকাশ্য হয়েছিল সা’মাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। সামনে চলে আসে দাম্পত্য ‘কলহ।

শুরুটা গত ২৮ জুন। ২৩ বছরের তরুণ শিল্পী নোবে’ল তার ভেরিফায়েড ফেসবুক অ্যাকাউন্টে জানান—‘আলহা’মদুলিল্লাহ। হয়তো আমরা মা-বাবা হতে চলেছি। আমি এবং আ’মার সহধর্মিণীর জন্য দোয়া করবেন।’ বিষয়টি নিয়ে ক্ষুব্ধ” হন সালসাবিল। ফেসবুক লাইভে এসে জানান, তারা দীর্ঘ’দিন ধরেই আলাদা থাকছেন। এবং নোবেলের কথাটি সত্য নয়।’ এরপর নোবেল তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে অনাগত ‘সন্তান হত্যা’র “অভিযোগ তুলেছিলেন।

কিছুদিন বাদে নোবেলকে নেশাগ্রস্থ অবস্থায় পাহাড়ি “অঞ্চলে দেখা গিয়েছিল। বান্দরবানে এক নারীর সঙ্গেও অপ্রী”তিকরভাবে তাকে পাওয়া যায়। এমনকি স্থানীয়রা নোবেলের বি”রুদ্ধে নানা ধরনের অভিযোগ আনেন।”গ গ্ন

Leave a Reply

x